কালের সাক্ষী এলাহী সাপুড়ে।

145
কালের সাক্ষী এলাহী সাপুড়ে ।
এলাহী সাপুড়ে

“আমি কিংবদন্তির কথা বলছি
আমি আমার পুর্বপুরুষ দের কথা বলছি “
আবু জাফর

মানুষের গল্পে আজ পরিচয় করাবো এমন একজন কে যাকে আলমডাঙ্গা অঞ্চলের ছেলে বুড়ো সবাই এক নামে চেনে। তিনি আলমডাঙ্গার বন্ডবিল গ্রামের এলাহী সাপুড়ে। এই মানুষটা সাপের টুটি চেপে ধরে খেলা দেখিয়ে আলমডাঙ্গা এলাকার মানুষকে আনন্দ দিয়েছে। সদা হাস্যজ্বল এই মানুষ টাকে আর কখনো পশুহাটের ঔষদ বিক্রির ক্যানভাসে দেখা যাবে না।

বাংলা সিনেমার মতো তিনি কোনো নাগমনীর সন্ধান পান নি। তাই দরিদ্রতা কাছে চিরদিন মাথা নত করে বাচতে হয়েছে এলাহী কে। অথচ এই এলাহি যৌবনে দাপিয়ে বেড়িয়েছেন দেশের হাজারো ঝাপান খেলার মঞ্চে পেয়েছেন সন্মান জিতেছেন পুরুষ্কার কিন্তু তাতে তার দালান ওঠেনী। শেষ বয়সে অসুস্থ হয়ে নিজেই মৃত্যুর সাথে ঝাপান খেলেছেন। তার দেহও শিথীল হয়েছে, আর কাওকে ইন্দ্রজাল শক্তিতে তাক লাগাবে না। অথচ শহরের মানুষ কাজ ফেলে তার কারিশমা দেখেছে একদিন আজ সে নিজেই অস্তগত সূর্য। সততা তাকে দিয়েছে এক নায়কের মর্যাদা।


যতদিন সাপ, সাপুড়ের নাম রবে ততদিন আলমডাঙ্গার ইতিহাসে এলাহি সাপুড়ের নাম স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে সবাই তাকে স্মরণ করবে।